Saturday, November 19, 2016

শীতে শিশুদের ডায়রিয়া বেড়ে যায়।


শীতে শিশুদের ডায়রিয়া বেড়ে যায়। এনটিভির নিয়মিত আয়োজন স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ২৫৬৩তম পর্বে এ বিষয়ে কথা বলেছেন ডা. সুবাস চন্দ্র সাহা। বর্তমানে তিনি শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজের শিশু বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত।
প্রশ্ন : শিশুদের ডায়রিয়ার খুব বেশি প্রাদুর্ভা

উত্তর : আমাদের দেশে তো বছরব্যাপী ডায়রিয়ার একটি প্রাদুর্ভাব আছে। কিছু কিছু ঋতুতে ঋতুর বিষয়গুলোও আসে। যেমন শীতকালের শুরুতে শিশুদের ডায়রিয়া হওয়ার প্রবণতা থাকে। প্রথমে আসি ডায়রিয়া কেন হয়? সে ক্ষেত্রে অধিকাংশ কারণ ভাইরাসজনিত। রোটা ভাইরাস। এ ছাড়া অন্যান্য কিছু কারণও আছে। সম্ভবত শীতের এই ঋতুগুলোতে যে ভাইরাস দিয়ে ডায়রিয়া সংক্রমিত হয়, সে এই পরিবেশে বেশি বেঁচে থাকতে পারে। যে কারণে এই ঋতুতে ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

প্রশ্ন : এ ক্ষেত্রে কত বছর শিশুদের বেশি সমস্যাটি হয়?

উত্তর : ডায়রিয়া তো সব বয়সেই হতে পারে। ডায়রিয়াজনিত কারণে মৃত্যুহারও বেশি হয়। আমাদের দেশের শিশুমৃত্যুর অন্যতম কারণ হলো ডায়রিয়া। আমি যদি চার-পাঁচটি রোগের নাম বলি, যার মধ্যে শিশুমৃত্যুর হার বেশি—নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া। এ ছাড়া বাচ্চাদের কিছু জন্মগত বিষয় আছে, যাকে আমরা নিউনেটাল ডেথ বলি। এগুলোই মোটামুটি বিষয় আছে। এ সময়ই ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা বাচ্চাদের বেশি থাকে।

আজ সমাপনি পরীক্ষা 2016 চলছে ।


দেশের সাত হাজারের বেশি কেন্দ্রে একযোগে শুরু হয়েছে প্রাথমিক ও ইবেতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা, যাতে এবার অংশ নিচ্ছে ৩২ লাখ ৩০ হাজার ২৮৮ জন শিক্ষার্থী।

পঞ্চম শ্রেণির এই শিক্ষার্থীরা প্রথম দিন অংশ নিচ্ছে ইংরেজি পরীক্ষায়। সকাল ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত পরীক্ষা চলবে। সমাপনী পরীক্ষা শেষ হবে ২৭ নভেম্বর।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার রোববার রাজধানীর অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজে সমাপনী পরীক্ষাকেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

কেরানীগঞ্জ গার্লস স্কুল অ‌্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের সচিব স্বপন কুমার রায় জানান, নির্ধারিত সময়েই তার কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। বিভিন্ন স্কুল থেকে প্রাথমিকে ৭৬৯ জন এবং ইবতেদায়িতে ৮ জন এ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিচ্ছে।

ক্ষুদেদের সমাপনী পরীক্ষায় গত বছর ৩২ লাখ ৫৪ হাজার ৫১৪ জন অংশ নিয়েছিল। সেই হিসেবে এবার পরীক্ষার্থী কমেছে ২৪ হাজার ২২৬ জন।

>> প্রাথমিক সমপানীতে এবার ২৯ লাখ ৩০ হাজার ৫৭৩ জন পরীক্ষা দিচ্ছে। এর মধ্যে ১৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩২ জন ছাত্র; ১৫ লাখ ৮৪ হাজার ৫৪১ জন ছাত্রী।

>> ইবেতেদায়ির ২ লাখ ৯৯ হাজার ৭১৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৫৭ হাজার ৩১৯ জন ছাত্র এবং ১ লাখ ৪২ হাজার ৩৯৬ জন ছাত্রী।

>> এবার প্রাথমিক সমাপনীতে ২ হাজার ৮৫৭ জন এবং ইবতেদায়িতে ৯০ জন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন (অটিস্টিক) পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

>> বিদেশের ১১টি কেন্দ্রেও প্রাথমিক ও ইবেতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা হচ্ছে।

পঞ্চমের সমাপনী পরীক্ষা উপলক্ষে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে। ০২-৯৫১৫৯৭৭, ০২-৫৫০৭৪৯৩৯, ০১৯৭৯-০৮৮৭১৯ এবং ০১৭১২-৪১৩১০০ নম্বরে নিয়ন্ত্রণ কক্ষে ফোন করে পরীক্ষা সম্পর্কিত যে কোনো তথ‌্যের জন‌্য কথা বলা যাবে।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ২০০৯ সাল থেকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু হয়। আর ইবতেদায়িতে এ পরীক্ষা হচ্ছে ২০১০ সাল থেকে।

প্রথম দুই বছর বিভাগভিত্তিক ফল দেওয়া হলেও ২০১১ সাল থেকে গ্রেডিং পদ্ধতিতে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের সমাপনীর ফল দেওয়া হচ্ছে।

আগে এ পরীক্ষার সময় ছিল দুই ঘণ্টা; ২০১৩ সাল থেকে পরীক্ষার সময় আধা ঘণ্টা বাড়িয়ে আড়াই ঘণ্টা করা হয়।

প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ৬৪ জেলাকে বিশেষ আটটি অঞ্চলে ভাগ করে আট সেট প্রশ্নে গত বছর থেকে প্রাথমিক ও ইবেতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নিচ্ছে সরকার।

প্রাথমিক সমাপনীর সূচি

২০ নভেম্বর ইংরেজি, ২১ নভেম্বর বাংলা, ২২ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২৩ নভেম্বর প্রাথমিক বিজ্ঞান, ২৪ নভেম্বর ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা ও ২৭ নভেম্বর গণিত।

ইবতেদায়ি সমাপনী সূচি

২০ নভেম্বর ইংরেজি, ২১ নভেম্বর বাংলা, ২২ নভেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ২৩ নভেম্বর আরবি, ২৪ নভেম্বর কুরআন ও তাজবীদ এবং আকাঈদ ও ফিকহ, ২৭ নভেম্বর গণিত।

Masud